দুপুর ১:২২ ; শনিবার ; ২৮শে নভেম্বর, ২০২০ খ্রিস্টাব্দ
facebook Youtube google+ twitter
×




বরিশালে করোনায় মৃত ব্যক্তির কফিনে গাঁজার চালান।।গোলক ধাঁধায় পুলিশ

বরিশাল পিপলস
৩:৪৩ অপরাহ্ণ, জুলাই ২১, ২০২০

রিপোর্ট-বরিশাল পিপলস ॥ বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের করোনা ওয়ার্ডে উপসর্গ নিয়ে মৃত্যু হওয়া ব্যক্তির কফিনে পাওয়া গাঁজা রহস্য নিয়ে গোলক ধাঁধার সৃষ্টি হয়েছে। কোথা থেকে এসেছে এই গাঁজা তার কূল কিনারা খুঁজে পাচ্ছে না পুলিশ। এমনকি ঘটনার সাথে সংশ্লিষ্টরা কেউ এর দায় নিতে চাচ্ছেন না। যদিও পুলিশের দাবি মৃত ব্যক্তির স্বজন, অ্যাম্বুলেন্স চালক কিংবা কফিন সরবরাহকারী কেউ জড়িত নন এই গাঁজা রহস্যের সাথে।
এর আগে গত শনিবার রাত আড়াইটার দিকে শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের করোনা ওয়ার্ডে মৃত্যু হয় আব্দুল হালিম নামের ৭০ বছর বয়সী বৃদ্ধ কাঠমিস্ত্রীর। তাকে বহনের জন্য সরবরাহকৃত কফিনের ঢাকনা খুলতেই ভেতরে কাগজে মোড়া ২১ পোটলা (পুরিয়া) গাঁজা খুঁজে পান সংশ্লিষ্টরা। যা পরবর্তীতে পুলিশ উদ্ধার করেছে।

উপসর্গ নিয়ে মৃত্যু হওয়া বৃদ্ধ পিরোজপুরের মঠবাড়িয়া উপজেলার সাপজেলা ইউনিয়নের নলী তুলাতলা গ্রামের মৃত কদম আলীর ছেলে। গত শুক্রবার দুপুর ২টার দিকে তাকে হৃদরোগ নিয়ে বরিশাল শেবাচিম হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছিল। পরে করোনা উপসর্গ দেখা দেওয়ায় তাকে করোনা আইসোলেশন ইউনিটে প্রেরণ করা হয়।

মৃত আব্দুল হালিম এর ছেলে বরগুনা সরকারি কলেজের মাস্টার্সের ছাত্র সোহাগ মিয়া বলেন, ‘আব্বার করোনা ওয়ার্ডে মৃত্যু হয়েছে বলে মৃতদেহ কফিনে করে নেওয়ার জন্য বলেন হাসপাতালের ওয়ার্ড মাস্টার আবুল কালাম আজাদ। তার কথা মতো ওয়ার্ডে কর্মরত নৈশ প্রহরী আবুল খায়েরের সাথে যোগাযোগ করেন তারা। পরে তার দাবি অনুযায়ী ২১শত টাকা দিয়ে কফিন আনতে বলেন। এসময় সেখানে অ্যাম্বুলেন্স চালক মাইনুল ইসলাম লিটন এবং তার গড়ির হেলপার উপস্থিত ছিলেন।

সোহাগ বলেন, ‘টাকা দিয়ে আমি চা পান করার জন্য দোকানের খোঁজে যাই। এর পর এসে দেখি অ্যাম্বুলেন্সের পেছনে কফিন রাখা। নৈশ প্রহরী খায়েরের সহযোগিতায় আমি এবং আমার মা আব্বার লাশ করোনা ওয়ার্ড থেকে নিচে নামিয়ে কফিনে রাখতে যাই। তখন খায়ের নামের ব্যক্তি কফিনের একাংশ খুলতেই ভেতরে একটি কাগজের পোটলা দেখতে পাই। এসময় পোটলার কথা তুলতেই খায়ের বলেন, ওটা পেরেক এর পোটলা, তাই এটা নিয়ে কথা না বাড়িয়ে লাশ কফিনে তোলার জন্য বলেন খায়ের এবং অ্যাম্বুলেন্স চালক লিটন। তবে বিষয়টি সন্দেহ হলে আমি পোটলাটা হাতে নেই। তখন খায়ের আমার হাত থেকে পোটলাটা নিয়ে পাশে জঙ্গলে ছুড়ে ফেলে দেয়। তার পরেও কৌতূহলবশত পোটলাটা খুলতেই দেখা যায় গাঁজা।

তিনি বলেন, ‘গাঁজা পাওয়ার পরে পুরো বিষয়টি আমি আমার মোবাইল ক্যামেরায় ভিডিও ধারণ করি। এর পর পরই অ্যাম্বুলেন্স চালক বিষয়টিতে গুরুত্ব দেয়। এমনকি সে জাতীয় কল সেন্টার ৯৯৯ নম্বরে ফোন করে পুলিশও আসতে বলে। কিন্তু এর আগে অ্যাম্বুলেন্স চালক এমনকি দারোয়ান খায়ের রহস্যজনকভাবে এড়িয়ে যাবার চেষ্টা করে। যে কারণে আগেভাগেই বিষয়টি আমি আমার সাংবাদিক ফুফাতো ভাইকে ফোন করে জানাই। পরে তিনিও কোতয়ালী মডেল থানা পুলিশকে বিষয়টি অবগত করেন। এর পর পরই কোতয়ালী মডেল থানার এসআই মিজানসহ পুলিশের দুটি টিম ঘটনাস্থলে গিয়ে গাঁজা উদ্ধার করে।

অ্যাম্বুলেন্স চালক মাইনুল ইসলাম লিটন বলেন, ‘কফিন কে আনছে বা কখন আনছে কিছুই আমার জানা নেই। রাতে খাবার খাওয়ার সময় কফিন আনার বিষয়টি আমাকে জানানো হয়েছে। আমি এসে দেখতে পাই মৃত ব্যক্তির ছেলের হাতে গাঁজার পোটলা। সে গাঁজাসহই মৃতদেহের কফিন গাড়িতে তোলার জন্য তড়িঘড়ি শুরু করে। কিন্তু আমি বিষয়টি পুলিশকে না জানিয়ে লাশ নিব না বলে জানাই। পরে ৯৯৯ নম্বরে ফোন করলে পুলিশ এসে গাঁজা উদ্ধার করেছে। এখানে তাকে দায়ী করা হলে সেটা ভিত্তিহীন হবে বলে মন্তব্য করেন তিনি।

তবে এলাকায় খোঁজ নিয়ে জানাগেছে, অ্যাম্বুলেন্স চালক লিটন মাদকাসক্ত। চতুর্থ শ্রেণি কর্মচারীদের কোয়ার্টারে থাকেন তিনি। তার বাবা হাসপাতালের সাবেক স্টাফ ছিলেন। যে কারণে এই গাঁজা রহস্যের সাথে তার সম্পৃক্ততার সন্দেহ করছেন অন্যান্য অ্যাম্বুলেন্স চালকরা। যদিও তাদের এই সন্দেহের বিষয়টি চ্যালেঞ্জ করতে প্রস্তুত বলে জানিয়েছেন লিটন।

এদিকে করোনা ওয়ার্ডে দায়িত্বরত নৈশ প্রহরী আবুল খায়ের বলেন, ‘বিষয়টি সম্পর্কে আমি অতটা অবগত নই। ওয়ার্ড মাস্টার আবুল কালাম আজাদ আমাকে ফোন করে কফিন সংগ্রহের জন্য প্রথমে দেড় হাজার এবং পরে ২১শ টাকা নিতে বলেন। তার কথামতো আমি চাঁদমারী এলাকায় বাদশা নামের ব্যক্তিকে ফোন করে কফিন পাঠিয়ে দিতে বলি। তিনিই ভ্যানগাড়িতে করে একটি কফিন করোনা ওয়ার্ডের সামনে প্রেরণ করেছেন। কফিন যখন করোনা ওয়ার্ডের সামনে নিয়ে আসা হয় তখন মৃত’র স্বজনরাও ছিলেন। তাদের সামনে কফিন খুলতেই গাঁজার পোটলা পাওয়া গেছে। এখানে আমার কোন সম্পৃক্ততা নেই। তাছাড়া ইতিপূর্বে এ ধরনের কোন ঘটনা ঘটেওনি।

এদিকে কফিন সরবরাহকারী নগরীর চাঁদমারীর কফিন বিক্রেতা বাদশা মিয়া জানিয়েছেন, ‘এই ধরনের ঘটনা প্রথম ঘটেছে। ইতিপূর্বে করোনা ওয়ার্ডে আরও বেশ কিছু কফিন পাঠিয়েছি। তখন এ ধরনের কোন অভিযোগ আসেনি। কফিনের মধ্যে কিভাবে গাঁজা আসল তাও আমার জানা নেই। যে ভ্যান চালক কফিন নিয়ে গেছে সেও কফিন খুলে দেখেনি। চাঁদমারী এলাকার গাঁজা ব্যবসায়ীরা কৌশলগত কারণে কফিনের মধ্যে গাঁজার পোটলা রেখেছে বলে ধারণা বাদশা মিয়ার।

অপরদিকে শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের বেসরকারি অ্যাম্বুলেন্স মালিক সমিতির নেতা জাকির হোসেন বলেন, ‘গাঁজা উদ্ধারের ঘটনা আমি শুনেছি। বিষয়টি রহস্যজনক। আমার মনে হয় কফিনের ব্যবসার সাথে জড়িতদের কেউ এসব করতে পারে। তাছাড়া অ্যাম্বুলেন্সের সাথে জড়িতদের মধ্যে অনেকেই গাঁজা সেবন করে বলে অভিযোগ রয়েছে। তবে এই ঘটনার সঙ্গে তাদের সম্পৃক্ততা রয়েছে বলে আমার মনে হচ্ছে না। তাই বিষয়টি গুরুত্বের সাথে তদন্ত করে দেখা উচিত বলে মনে করেন এই ব্যবসায়ী নেতা।

তবে আলাপকালে গাঁজা উদ্ধার করা কোতয়ালী মডেল থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) মিজানুর রহমান বলেন, ‘বিষয়টি নিয়ে এখনো তদন্ত চলছে। এরই মধ্যে কফিন সরবরাহকারী বাদশা নামের ব্যবসায়ীকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়েছে। বিষয়টি নিয়ে সেখানকার ব্যবসায়ী নেতৃবৃন্দের সঙ্গে বৈঠকও হয়েছে। প্রাথমিক তদন্তে যতটুকু জেনেছি তাতে কফিন ব্যবসায়ী ভদ্র লোক। তিনি এটা করেননি।

তবে ব্যবসায়ী নেতারা জানিয়েছেন, চাঁদমারীতে কিছু শ্রমিক আছে যারা গাঁজা সেবন করে। হতে পারে তারাই রাতে ওই গাঁজা কফিনের মধ্যে রেখেছিল সকালে নিয়ে যাবার জন্য। কিন্তু তার আগেই কফিন হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। তাছাড়া অ্যাম্বুলেন্স চালক বিষয়টির সঙ্গে জড়িত থাকলে সেটা কফিনের মধ্যে রাখতো না। আর মৃত ব্যক্তির ছেলেরও এর সঙ্গে জড়িত থাকার কারণ খুঁজে পাওয়া যায়নি। তার পরেও চালক এবং মৃত ব্যক্তির ছেলের জবানবন্দি গ্রহণ করা হয়েছে। পাশাপাশি বিষয়টি নিয়ে অধিকতর তদন্ত চলছে। খুব শীঘ্রই কফিনে থাকা গাঁজা রহস্য উদঘাটন সম্ভব হবে বলে জানিয়েছেন পুলিশের এই কর্মকর্তা।

আইন-আদালত, আন্তর্জাতিক, পিরোজপুর, বরিশাল, লিড নিউজ




আপনার মতামত লিখুন :




এই বিভাগের আরো সংবাদ




আমাদের ফেসবুক পেজ

সম্পাদক ও প্রকাশক: মাসুদ রানা
ব্যবস্পাপনা সম্পাদক: কামাল সরদার (মুন্না)

ঠিকানা: জাহানারা মঞ্জিল, কবি নজরুল ইসলাম

সড়ক, নথুল্লাবাদ ( বাস-টার্মিনাল’র দক্ষিনপাশে) বরিশাল।
মোবাইলঃ 01718666126
ই-মেইলঃ masud.journalsit24@gmail.com

ই-মেইল: barisalpeoples@gmail.com
টপ
  বাবুগঞ্জে ইয়াবা সেবী পুলিশ সদস্যের নির্যাতনে স্ত্রী হাসপাতালে   করোনা ঠেকাতে বরিশাল জেলা প্রশাসন কঠোর অবস্থানে   Bangladesh plans new pandemic restrictions; no more lock-downs   মহামারী নিয়ন্ত্রণে নতুন পরিকল্পনা ; লকডাউন হবে না বাংলাদেশে   বনেকের জরুরি সভা অনুষ্ঠিত, অনলাইন পত্রিকার রেজিষ্ট্রেশন পেতে সহযোগিতার সিদ্বান্ত   পিরোজপুরে বক্তারা : পুরুষদের সম্পৃক্তকরণের মাধ্যমে নারী ও শিশুর প্রতি সহিংসতা রুখে দেয়া সম্ভব   করোনা প্রতিরোধে বরিশাল মেট্রোপলিটন পুলিশের সচেতনতামূলক র‌্যালি   বরিশালে সুন্দরবন লঞ্চের ছাদে যুবককে কুপিয়ে হত্যা   ক্ষমা চাচ্ছি-আমি মুসলমান, কালীপূজা উদ্বোধন করিনি : সাকিব আল হাসান   বকেয়া বেতনের দাবিতে বরিশাল-ঢাকা মহাসড়ক অবরোধ   জ্ঞানভিত্তিক সমাজ গঠনে মঠবাড়িয়ায় ডিজিটাল পাবলিক লাইব্রেরীর আত্মপ্রকাশ!   বরিশাল মিডিয়ার ভেঙ্গে দেওয়া একটি হাত….   র‌্যাব-৮’র অভিযানে চোরাই গাড়ীসহ ফরিদপুরের সেন্টু গ্রেফতার   ঢকায় T20 ক্রিকেট’র লোগো উন্মোচন করবেন প্রতিমন্ত্রী জাহিদ ফারুক   ‘উপকূল দিবস’ ঘোষণা ও উপকূলীয় অঞ্চল সুরক্ষার দাবিতে পদযাত্রা   কলামিষ্ট রাজু লস্কর’র নতুন লেখনীতে….রাজনীতি বনাম বিজ্ঞাপন   উত্তাপ্ত বরিশালে অর্থনৈতিক নিরাপত্তায় শিল্প পুলিশের দাবি!   বাবুগঞ্জ পাংশা গ্রামের কাঁচা রাস্তায় মানুষের দুর্ভোগ   ঢাকা থেকে বরিশালে এসে ব্যবসায়ী নিখোাঁজ   বরিশালে মুক্তিযোদ্ধার ভুয়া সনদে ব্যাংকে চাকরি